rss

সেহরি ও ইফতার | রমজান-

শিরোনাম
বাংলাদেশের পরিস্থিতি গভীরভাবে পর্যবেক্ষণ করছে ফ্রান্স, বিৃবতিতে দেশটির পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র <> 'অধিকার' সম্পাদক আদিলুর রহমান খান ও পরিচালক নাসির উদ্দিন এলানের বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠন <> অবরোধকারীদের ছোড়া পেট্রল বোমায় দগ্ধ বীমা কর্মকর্তা শাহীনা আক্তার (৩৮) ও ফল ব্যবাসায়ী মো. ফরিদ (৫০) মারা গেছেন <> সংখ্যালঘুদের ওপর বারবার হামলা হলে তার পরিণাম হবে আত্মঘাতী, মন্তব্য যোগাযোগমন্ত্রীর <> ভারতের মহারাষ্ট্রে চলন্ত ট্রেনে আগুন লেগে এক নারীসহ অন্তত ৯ জন নিহত
প্রিন্ট সংস্করণ, প্রকাশ : ১৯ জুন ২০১৫, ০০:০৬:০০অ-অ+
printer

বিশ্বে ৬ কোটি উদ্বাস্তু

সমকাল ডেস্ক
বিশ্বে প্রায় ৬ কোটি মানুষ উদ্বাস্তু হয়েছে। অতীতের সব রেকর্ড ছাড়িয়ে এত বেশি মানুষ গৃহহীন হওয়ার পেছনে দায়ী করা হয়েছে যুদ্ধ, সংঘাত ও নিপীড়নকে। জাতিসংঘের এ প্রতিবেদনে জানা গেছে এই তথ্য। জাতিসংঘের উদ্বাস্তুবিষয়ক সংস্থা ইউএনএইচসিআর বলেছে, উদ্বাস্তুর সংখ্যা আগের বছরের চেয়ে বেড়েছে প্রায় ৮৩ লাখ। দুনিয়াজুড়ে হানাহানি আর সংঘাতের সংখ্যা আগের চেয়ে অনেক বেশি বেড়ে যাওয়ায় উদ্বাস্তুর সংখ্যাও বেড়ে গেছে বলে উল্লেখ করা হয়েছে প্রকাশিত প্রতিবেদনটিতে। এর আগে কেবল দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের সময়ই ৫০ লাখ মানুষ নিজ দেশ থেকে পালিয়ে বিদেশে আশ্রয়প্রার্থী হতে বাধ্য হয়েছিল। ২০১৪ সালে উদ্বাস্তু মানুষের সংখ্যা মোটামুটি যুক্তরাজ্যের জনসংখ্যার সমান।
উদ্বাস্তু সংখ্যা বৃদ্ধির এই প্রবণতা বিশ্বব্যাপী হানাহানি, সংঘাত ও যুদ্ধবিগ্রহ বাড়ার ঘটনাকেই ইঙ্গিত করছে। মধ্যপ্রাচ্য, আফ্রিকা, এশিয়া ও ইউরোপের অসংখ্য মানুষ লড়াইয়ের কারণে জীবন বাঁচানোর তাগিদে নিজ দেশ ছেড়ে বিভিন্ন দেশে আশ্রয়ের সন্ধানে ছুটছে। কিন্তু অভিবাসী হওয়ার এই উচ্চহার কমাতে ব্যর্থ হয়েছে বিভিন্ন দেশের সরকার ও সাহায্য সংস্থাগুলো। জাতিসংঘের প্রতিবেদনে এর কারণ হিসেবে দায়ী করা হয়েছে দুর্বল ব্যবস্থাপনা। হিসাব করে দেখা গেছে, প্রতিদিন ঘরছাড়া মানুষের সংখ্যা প্রায় ৪৫ হাজার। খবর : এএফপি, এনডিটিভি, দ্য ওয়াশিংটন পোস্ট।
জাতিসংঘের উদ্বাস্তুবিষয়ক হাইকমিশনার আন্তনিও গুটিরেস বলেন, 'আমরা এক দৃষ্টান্তমূলক পরিবর্তন দেখতে পাচ্ছি। বিশ্বে উদ্বাস্তু সংখ্যা বাড়ছে খুব দ্রুত গতিতে। আর নিজ দেশ ছেড়ে ভিন্ন দেশে অভিবাসী হতে বাধ্য হচ্ছে মানুষ দুনিয়াজুড়ে অস্থিরতা ও নৈরাজ্যকর পরিস্থিতির কারণে।'
আন্তনিও বলেন, 'এটা খুবই আশঙ্কার ব্যাপার যে, সংঘাত-হানাহানি ক্রমাগত বেড়ে যাচ্ছে, শান্তিপ্রিয় মানুষ তার ভুক্তভোগী হচ্ছে। অথচ সংঘর্ষ থামানোর জন্য স্থায়ী কিছু করতে আমরা পুরোপুরিই ব্যর্থ হচ্ছি।'
প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, যুদ্ধের কারণে কারা বাস্তুহারা হচ্ছে, কারা নিজেদের ঘরবাড়ি ছেড়ে ভিন্ন দেশে অনিশ্চিত যাত্রায় যাচ্ছে, কেন যাচ্ছে এসব বিষয়ের ওপর কড়া নজর রাখা উচিত। ১৯৫০ সালে ইউরোপীয় উদ্বাস্তুদের সহায়তা দেওয়ার জন্য গঠিত জাতিসংঘের উদ্বাস্তু বিষয়ক এ সংস্থাটির প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ২০১৪ সালে উদ্বাস্তু মানুষের সংখ্যা অতীতের সব রেকর্ড ছাড়িয়েছে। ২০১৩ সালে যুদ্ধবিগ্রহের কারণে ঘরহারা মানুষের সংখ্যা ছিল ৫ কোটি ১২ লাখ। আর ১০ বছর আগে এ সংখ্যা ছিল ৩ কোটি ৭৫ লাখ।
আন্তনিও গুটিরেস বলেন, 'এত বেশি মানুষ উদ্বাস্তু হওয়ার কারণ স্রেফ যুদ্ধ ও সংঘাত। ২০১৪ সালেই শুধু ইরাক আর সিরিয়া থেকে নিজেদের ভিটামাটি ছেড়ে পালিয়েছে প্রায় দেড় কোটি মানুষ। গত ৫ বছরে দুনিয়াজুড়ে কমপক্ষে ১৪টি বড় ধরনের সংঘাত হয়েছে। আর এর মধ্যে অর্ধেকের চেয়ে বেশি হয়েছে কেবল আফ্রিকায়। উদ্বাস্তুবিষয়ক হাইকমিশনার বলেন, দ্রুত বর্ধিষ্ণু উদ্বাস্তুর ভার বহন করার মতো আর্থিক ও আনুষঙ্গিক সক্ষমতা আমাদের নেই। তাই উন্নত দেশগুলোর উচিত এদের জন্য নিজেদের সীমান্ত উন্মুক্ত করে দেওয়া।
প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ২০১৪ সালে ভূমধ্যসাগর পাড়ি দিয়ে ২ লাখ ১৯ হাজার আশ্রয়প্রার্থী চোরাপথে ইউরোপের বিভিন্ন দেশে প্রবেশ করেছে। ২০১১ সালে এ সংখ্যা ছিল মাত্র ৭০ হাজার। এদিকে উন্নত দেশগুলোর উদ্বেগ ও আশঙ্কা সত্ত্বেও উন্নয়নশীল দেশগুলোও প্রায় ৮৬ শতাংশ উদ্বাস্তুকে নিজেদের দেশে আশ্রয় দিয়েছে।
মন্তব্য
সর্বশেষ ১০ সংবাদসর্বাধিক পঠিত
এই পাতার আরো খবর
সম্পাদক : গোলাম সারওয়ার
প্রকাশক : এ কে আজাদ
ফোন : ৮৮৭০১৭৯-৮৫  ৮৮৭০১৯৫
ফ্যাক্স : ৮৮৭০১৯১  ৮৮৭৭০১৯৬
বিজ্ঞাপন : ৮৮৭০১৯০
১৩৬ তেজগাঁও শিল্প এলাকা, ঢাকা - ১২০৮
এই ওয়েবসাইটের লেখা ও ছবি অনুমতি ছাড়া অন্য কোথাও প্রকাশ বেআইনি
powered by :
Copyright © 2017. All rights reserved