rss

সেহরি ও ইফতার | রমজান-

শিরোনাম
বাংলাদেশের পরিস্থিতি গভীরভাবে পর্যবেক্ষণ করছে ফ্রান্স, বিৃবতিতে দেশটির পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র <> 'অধিকার' সম্পাদক আদিলুর রহমান খান ও পরিচালক নাসির উদ্দিন এলানের বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠন <> অবরোধকারীদের ছোড়া পেট্রল বোমায় দগ্ধ বীমা কর্মকর্তা শাহীনা আক্তার (৩৮) ও ফল ব্যবাসায়ী মো. ফরিদ (৫০) মারা গেছেন <> সংখ্যালঘুদের ওপর বারবার হামলা হলে তার পরিণাম হবে আত্মঘাতী, মন্তব্য যোগাযোগমন্ত্রীর <> ভারতের মহারাষ্ট্রে চলন্ত ট্রেনে আগুন লেগে এক নারীসহ অন্তত ৯ জন নিহত
প্রিন্ট সংস্করণ, প্রকাশ : ০৯ জানুয়ারি ২০১৪অ-অ+
printer

প্রণোদনা চায় রিহ্যাব

সমকাল প্রতিবেদক
দেশের বর্তমান রাজনৈতিক অস্থিরতায় আবাসনশিল্পের জন্য সরকারের কাছে বিশেষ প্রণোদনা প্যাকেজ চেয়েছে রিয়েল এস্টেট অ্যান্ড হাউজিং অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ (রিহ্যাব)। ব্যবসায়ীদের দাবি, চলমান অস্থিতিশীলতায় এ শিল্প প্রায় বন্ধ হয়ে যাওয়ার উপক্রম হয়েছে। জরুরি ভিত্তিতে সরকারের পক্ষ থেকে নীতি ও আর্থিক সহায়তা দেওয়া না হলে সম্ভাবনাময় এ খাতটিতে ধস নামবে।
গতকাল বুধবার সচিবালয়ে অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিতের সঙ্গে সাক্ষাৎ করে রিহ্যাব নেতারা এ দাবি জানান। রিহ্যাব সভাপতি ও সংসদ সদস্য নসরুল হামিদ এমপি প্রতিনিধি দলের নেতৃত্ব দেন।
বৈঠকে রিহ্যাবের পক্ষ থেকে দুটি প্রস্তাব দেওয়া হয়। প্রস্তাব দুটি হচ্ছে স্বল্পবিত্ত ও মধ্যবিত্ত ক্রেতাসাধারণের জন্য সিঙ্গেল ডিজিট সুদে দীর্ঘমেয়াদি ঋণ প্রদানের লক্ষ্যে জরুরি ভিত্তিতে তিন হাজার কোটি টাকার একটি তহবিল গঠন করে প্রণোদনামূলক প্যাকেজ ঘোষণা। ডেভেলপারদের বিদ্যমান ব্যাংকঋণ কোনো প্রকার ডাউন পেমেন্ট ছাড়াই এক বছরের জন্য গ্রেস পিরিয়ডের সুবিধা রেখে ঋণ পুনঃতফসিলীকরণের প্রস্তাবও দিয়েছেন নেতারা।
আবাসন খাত মারাত্মক সংকটে পতিত হয়েছে উল্লেখ করে রিহ্যাব সভাপতি এই খাতের বিভিন্ন সমস্যা তুলে ধরেন। এ সময় তিনি বলেন, বর্তমানে ফ্ল্যাট ও প্লট বিক্রয় প্রায় ৬০ শতাংশ কমেছে। অধিকাংশ ডেভেলপারই এখন বিনিয়োগ বন্ধ রেখেছেন। একই সঙ্গে এ খাতে ব্যাংকের ঋণপ্রবাহ প্রায় বন্ধ হয়ে যাওয়ার কারণে সংকট আরও তীব্রতর হয়েছে।
নসরুল হামিদ বলেন, প্রায় আট হাজার কোটি টাকার দায় ব্যবসায়ীদের মাথার ওপর। ৩১২টি প্রতিষ্ঠানের সাড়ে ২২ হাজার ফ্ল্যাট অবিক্রীত রয়েছে, যার দাম প্রায় সাড়ে ২১ হাজার কোটি টাকা। এ সময় তিনি আবাসন খাতের সঙ্গে লিঙ্কেজ শিল্পগুলোর করুণ অবস্থাও তুলে ধরেন।
নসরুল হামিদ বলেন, সরকারি নীতিতে আবাসন খাতকে শিল্প হিসেবে স্বীকৃতি দিলেও বাংলাদেশ ব্যাংকের এক সার্কুলারের কারণে বাণিজ্যিক ব্যাংকগুলো ঋণ দিতে চায় না। ক্রেতাদের ঋণ নিতে হচ্ছে ১৭ থেকে ১৯ শতাংশ সুদে। পৃথিবীর কোথাও এমনটা নেই। ক্রেতারা কম সুদে ঋণ পেলে এ খাতে সৃষ্ট জটিলতা অনেকটা কমবে। একই সঙ্গে ঋণের সহজলভ্যতার জন্য বাংলাদেশ ব্যাংকের সার্কুলারটি প্রত্যাহার করতে হবে বলে তারা দাবি করেন।
রিহ্যাবের দাবি প্রসঙ্গে অর্থমন্ত্রী বলেন, আবাসন খাত যে কোনো দেশের অর্থনীতিতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখে। কিন্তু দেশের বর্তমান রাজনৈতিক অবস্থার কারণে অর্থনীতির প্রতিটি ক্ষেত্রেই বিরূপ প্রভাব পড়েছে। ঋণের সুদের হার এক অঙ্কে নামিয়ে আনা সম্ভব হবে না। তবে বাংলাদেশ ব্যাংক কী কারণে এ খাতকে শিল্প খাত হিসেবে মানতে চাইছে না, সে বিষয়ে সংশ্লিষ্টদের সঙ্গে কথা বলব। ঋণ পুনঃতফসিলীকরণ এবং নিম্ন ও মধ্যবিত্ত ক্রেতাদের জন্য স্বল্প সুদে ব্যাংকঋণের বিষয়টি বিবেচনা করা যেতে পারে বলে মন্তব্য করেন তিনি।
মন্তব্য
সর্বশেষ ১০ সংবাদসর্বাধিক পঠিত
এই পাতার আরো খবর
সম্পাদক : গোলাম সারওয়ার
প্রকাশক : এ কে আজাদ
ফোন : ৮৮৭০১৭৯-৮৫  ৮৮৭০১৯৫
ফ্যাক্স : ৮৮৭০১৯১  ৮৮৭৭০১৯৬
বিজ্ঞাপন : ৮৮৭০১৯০
১৩৬ তেজগাঁও শিল্প এলাকা, ঢাকা - ১২০৮
এই ওয়েবসাইটের লেখা ও ছবি অনুমতি ছাড়া অন্য কোথাও প্রকাশ বেআইনি
powered by :
Copyright © 2017. All rights reserved