rss

সেহরি ও ইফতার | রমজান-

শিরোনাম
বাংলাদেশের পরিস্থিতি গভীরভাবে পর্যবেক্ষণ করছে ফ্রান্স, বিৃবতিতে দেশটির পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র <> 'অধিকার' সম্পাদক আদিলুর রহমান খান ও পরিচালক নাসির উদ্দিন এলানের বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠন <> অবরোধকারীদের ছোড়া পেট্রল বোমায় দগ্ধ বীমা কর্মকর্তা শাহীনা আক্তার (৩৮) ও ফল ব্যবাসায়ী মো. ফরিদ (৫০) মারা গেছেন <> সংখ্যালঘুদের ওপর বারবার হামলা হলে তার পরিণাম হবে আত্মঘাতী, মন্তব্য যোগাযোগমন্ত্রীর <> ভারতের মহারাষ্ট্রে চলন্ত ট্রেনে আগুন লেগে এক নারীসহ অন্তত ৯ জন নিহত
প্রিন্ট সংস্করণ, প্রকাশ : ০৯ জানুয়ারি ২০১৪অ-অ+
printer

বীমা ব্যবসায় দুঃসময়

আবু কাওসার
রাজনৈতিক সহিংসতায় বিরূপ প্রভাব পড়েছে বীমা ব্যবসায়। টানা হরতাল-অবরোধে অর্থনৈতিক কর্মকাণ্ড ব্যাহত হওয়ায় গত বছরে বেশিরভাগ বীমা কোম্পানির ব্যবসা কমে গেছে। একই সঙ্গে লক্ষ্য পূরণে ব্যর্থ হয়েছে অনেক কোম্পানি। সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে, রাজনৈতিক অস্থিরতার কারণে
বিদায়ী ২০১৩ সালে বীমা খাতের ব্যবসা আগের বছরের চেয়ে অন্তত ১২ থেকে ১৫ শতাংশ কমেছে।
এ ছাড়া গাড়ি ভাংচুর ও অগি্নকাণ্ডের ঘটনা বৃদ্ধি পাওয়ায় অনেক কোম্পানি আর্থিক চাপে পড়েছে। গত অক্টোবর থেকে সহিংসতা ভয়াবহ রূপ ধারণ করায় সংশ্লিষ্ট কোম্পানিগুলোতে ক্ষতিপূরণের 'দাবি'র চাপ বাড়ছে। বাড়তি দাবি পরিশোধের খেসারত দিতে গিয়ে অনেক কোম্পানির আয় কমে গেছে। বীমা কোম্পানির শীর্ষ নির্বাহীরা বলেছেন, চলমান রাজনৈতিক অস্থিরতার কারণে অর্থনীতির অন্যান্য খাতের মতো বীমা খাতও মন্দার কবলে পড়েছে। দুঃসময়ে রয়েছে এ শিল্প।
বাংলাদেশ ইন্স্যুরেন্স অ্যাসোসিয়েশন (বিআইএ) সূত্রে জানা গেছে, ২০১২ সালে সাধারণ বীমা কোম্পানিগুলো প্রায় ১ হাজার ৯০০ কোটি টাকার ব্যবসা (প্রিমিয়াম আয়) করেছে। ওই বছরে ব্যবসা বেড়েছে ১০ শতাংশ। বীমা কোম্পানির শীর্ষ নির্বাহী কর্মকর্তাদের সঙ্গে আলাপ করে জানা গেছে, সাধারণত বাংলাদেশে বার্ষিক বীমা ব্যবসার (সাধারণ) প্রবৃদ্ধি হার গড়ে ১০ থেকে ১২ শতাংশ। কিন্তু গত বছর এই প্রবৃদ্ধি হয়নি। উল্টো আরও কমে গেছে। ২০১৩ সালের হিসাব এখনও চূড়ান্ত হয়নি বলে জানিয়েছে
বিআইএর একটি সূত্র।
যোগাযোগ করা হলে বিআইএর সাবেক নির্বাহী সদস্য ও ডিএসই সভাপতি আহসান উল ইসলাম টিটো সমকালকে বলেন, বীমা ব্যবসা অর্থনৈতিক কর্মকাণ্ডের সঙ্গে ওতপ্রোতভাবে জড়িত। রাজনৈতিক সহিংসতায় সাম্প্রতিক মাসগুলোতে দেশের আমদানি-রফতানি কার্যক্রম চরমভাবে ব্যাহত হয়েছে। এর বিরূপ প্রভাব বীমা ব্যবসায় আসবে_ এটাই স্বাভাবিক বলে মন্তব্য করেন তিনি। সহিংসতার ঘটনায় উদ্বেগ প্রকাশ করে তিনি বলেন, সম্প্রতি গাড়ি ভাংচুরের ঘটনা অস্বাভাবিক বেড়েছে। এতে অনেক কোম্পানি দাবি পরিশোধ করতে রীতিমতো হিমশিম খাচ্ছে। এতে ওই সব কোম্পানির ওপর আর্থিক চাপ বেড়েছে বলে উল্লেখ করেন তিনি।
শীর্ষস্থানীয় গ্রিন ডেল্টা ইন্স্যুরেন্স কোম্পানি কয়েক বছর ধরে সাফল্যের সঙ্গে ব্যবসা করে আসছে। কিন্তু ২০১৩ সালে কোম্পানির ব্যবসার ছন্দপতন ঘটেছে। রাজনৈতিক সহিংসতার কারণে গত বছর এই প্রথম লক্ষ্য পূরণে ব্যর্থ হয়েছে কোম্পানিটি। জানা গেছে, ২০১৩ সালে গ্রিন ডেল্টা ২৬১ কোটি টাকার প্রিমিয়াম আয় করেছে, যা কোম্পানির নির্ধারিত লক্ষ্যমাত্রার চেয়ে কম। এ প্রসঙ্গে জানতে চাইলে প্রবীণ বীমাব্যক্তিত্ব গিন ডেল্টার উপদেষ্টা নাসির এ চৌধুরী বলেন, রাজনৈতিক সহিংসতার কারণে কোম্পানির দাবি (ক্লেম) অনেক বেড়ে গেছে। একই অবস্থা বেসরকারি খাতের শীর্ষস্থানীয় রিলায়েন্স, কর্ণফুলী, রিপাবলিকসহ আরও অনেক কোম্পানির।
বর্তমানে বেসরকারি খাতে ৪৪টি সাধারণ বীমা কোম্পানি ব্যবসা করছে।
কর্ণফুলী ইন্স্যুরেন্স কোম্পানির গত বছর প্রিমিয়াম আয়ের লক্ষ্য ছিল ৩০ কোটি টাকা। অন্যান্য বছর লক্ষ্যের চেয়ে বেশি প্রিমিয়াম আয় করলেও ব্যতিক্রম ছিল গত বছর। কোম্পানি সূত্রে জানা গেছে, ২০১৩ সালে লক্ষ্যের চেয়ে ১ কোটি টাকা কম প্রিমিয়াম আয় করেছে তারা। দৃষ্টি আকর্ষণ করা হলে কর্ণফুলী ইন্স্যুরেন্স কোম্পানির ব্যবস্থাপনা পরিচালক অধ্যাপক হাফিজ উল্ল্যা বলেন, ব্যাংকে ঋণপত্রের চাহিদা কমে গেছে। এর নেতিবাচক প্রভাবে নৌ-বীমা খাত থেকে উদ্ভূত প্রিমিয়াম আয় কম হয়েছে। অন্যদিকে, বেসরকারি খাতে ঋণ প্রবাহের প্রবৃদ্ধি কমে যাওয়ায় শিল্প কারখানা স্থাপন কমে গেছে। এর বিরূপ প্রভাবে অগি্ন বীমা গ্রহণের হারও কমে গেছে বলে উল্লেখ করেন তিনি।
আইন অনুযায়ী, পণ্য আমদানির ক্ষেত্রে ঋণপত্র খোলার সঙ্গে বীমা ঝুঁকি গ্রহণের বাধ্যবাধকতা রয়েছে। একই সঙ্গে গুদামে মালপত্র সংরক্ষণের জন্য অগি্ন বীমারও বাধ্যবাধকতার বিধান রয়েছে। বীমা কোম্পানিগুলোর অর্জিত ব্যবসার (প্রিমিয়াম আয়) বেশির অংশ আসে এ দুটি উৎস থেকে। বাস্তবতা হচ্ছে, চলমান রাজনৈতিক অস্থিরতার প্রভাবে ব্যবসা-বাণিজ্য চরমভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হওয়ায় প্রিমিয়াম আয়ের সবচেয়ে বড় খাত সরসারি ক্ষতিগ্রস্ত হলো।
রিপাবলিক ইনস্যুরেন্স কোম্পানির ব্যবস্থাপনা পরিচালক ওবায়দুল কবির খান বলেন, গত চার মাসে বেশি ক্ষতি হয়েছে এ খাতের। গত বছর এই কোম্পানি প্রিমিয়াম আয়ের যে লক্ষ্য স্থির করেছিল, তা থেকে ৩ কোটি টাকা কম আয় হয়েছে। জানা গেছে, ২০১৩ সালে প্রিমিয়াম আয়ের লক্ষ্য
ছিল ৫৭ কোটি টাকা।
এদিকে, সাধারণের পাশাপাশি জীবন বীমার ব্যবসার অবস্থাও ভালো নয়। এ প্রসঙ্গে বেসরকারি সন্ধানী লাইফের ব্যবস্থাপনা পরিচালক আহসান উল ইসলাম টিটো বলেন, মানুষের ক্রয়ক্ষমতা কমে গেছে। অর্থনীতিও ভালো নেই। এ অবস্থায় কীভাবে বীমায় উৎসাহিত হবেন তারা!
মন্তব্য
সর্বশেষ ১০ সংবাদসর্বাধিক পঠিত
এই পাতার আরো খবর
সম্পাদক : গোলাম সারওয়ার
প্রকাশক : এ কে আজাদ
ফোন : ৮৮৭০১৭৯-৮৫  ৮৮৭০১৯৫
ফ্যাক্স : ৮৮৭০১৯১  ৮৮৭৭০১৯৬
বিজ্ঞাপন : ৮৮৭০১৯০
১৩৬ তেজগাঁও শিল্প এলাকা, ঢাকা - ১২০৮
এই ওয়েবসাইটের লেখা ও ছবি অনুমতি ছাড়া অন্য কোথাও প্রকাশ বেআইনি
powered by :
Copyright © 2017. All rights reserved