rss

সেহরি ও ইফতার | রমজান-

শিরোনাম
বাংলাদেশের পরিস্থিতি গভীরভাবে পর্যবেক্ষণ করছে ফ্রান্স, বিৃবতিতে দেশটির পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র <> 'অধিকার' সম্পাদক আদিলুর রহমান খান ও পরিচালক নাসির উদ্দিন এলানের বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠন <> অবরোধকারীদের ছোড়া পেট্রল বোমায় দগ্ধ বীমা কর্মকর্তা শাহীনা আক্তার (৩৮) ও ফল ব্যবাসায়ী মো. ফরিদ (৫০) মারা গেছেন <> সংখ্যালঘুদের ওপর বারবার হামলা হলে তার পরিণাম হবে আত্মঘাতী, মন্তব্য যোগাযোগমন্ত্রীর <> ভারতের মহারাষ্ট্রে চলন্ত ট্রেনে আগুন লেগে এক নারীসহ অন্তত ৯ জন নিহত
প্রিন্ট সংস্করণ, প্রকাশ : ০৯ জানুয়ারি ২০১৪ | আপডেট : ০৮ জানুয়ারি ২০১৪, ২২:৪৬:৪৩অ-অ+
printer

জুবায়ের হত্যাকাণ্ড বিচার কতদূর?

সৌমিত জয়দ্বীপ


বিশ্বজিৎ হত্যাকাণ্ডের বহুল প্রতীক্ষিত রায় হলো গত ১৮ ডিসেম্বর। হত্যাকাণ্ডের এক বছর পর। পুরান ঢাকার চাঞ্চল্যকর এ হত্যাকাণ্ডের রায় কার্যকর হতে কত সময় লাগবে সেটা কে বলতে পারে! তবু আশাবাদী মানুষ আমরা_ বিশ্বজিতের নামে লেখা হবে ন্যায়বিচার।

বিশ্বজিৎকে হত্যা করা হয়েছিল ২০১২ সালের প্রায় শেষান্তে_ ৯ ডিসেম্বর। ২০১২ সালের শুরুতে কিন্তু আরেকটা হত্যাকাণ্ডে হতবিহ্বল হয়েছিল বাংলাদেশ! জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের ইংরেজি বিভাগের ছাত্র জুবায়েরের স্নাতক জীবন শেষ করতে মাত্র মৌখিক পরীক্ষাই বাকি ছিল। তার আগেই ঘাতক জীবনঘড়িটাই থামিয়ে দিল! আজ ৯ জানুয়ারি_ জুবায়ের হত্যাকাণ্ডের দ্বিতীয় বার্ষিকী। জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ে দ্বিতীয় 'সন্ত্রাসবিরোধী দিবস'।

স্বাধীন বাংলাদেশে ছাত্র-হত্যাকাণ্ড তো কম হয়নি ক্যাম্পাসগুলোতে। জুবায়েরের অনেক আগে জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়েই হয়েছে। জুবায়ের হত্যার কাছাকাছি সময়ে ঢাকা-রাজশাহী-চট্টগ্রামসহ অন্যান্য পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়েও হয়েছে। কিন্তু বিশ্ববিদ্যালয়ের আইনে প্রথম বিচার হয়েছে জুবায়ের হত্যাকাণ্ডের। পূর্ণাঙ্গ সাফল্য হয়তো তার এখনও পাওয়া বাকি।

কিন্তু ভবিষ্যতের লড়াইয়ের জন্য, আত্মবিশ্বাসের জন্য এই সাফল্যকে ধারণ করা অনিবার্য।

পরিতাপের বিষয়, যে 'শিক্ষক সমাজ' সেদিন 'সিন্ডিকেট বিচার করেনি' আওয়াজ তুলে আন্দোলন গতিশীল রেখে স্বেচ্ছাচারী উপাচার্যের পতন ত্বরান্বি্বত করতে প্রথম ডাক দিয়েছিল, তাদের সেই ব্যানার আজ নিষ্ক্রিয়! দ্বিধাবিভক্ত। বড় দুই দলের মদদপুষ্ট বিভিন্ন গ্রুপের শিক্ষকরা জুবায়েরের কথা দিব্যি ভুলে গেছেন! অথচ সেদিন লোকে মনে করেছিল, এই সুযোগসন্ধানীরা বুঝি 'চেতনার নতুন দীক্ষা' নিয়েছেন! কেউ কেউ মনে করেছিল, শিক্ষার্থীদের অর্জনকে খাটো করে দেখে তারা বেশ করেছেন! বাস্তবতা হলো, লড়াকু শিক্ষার্থীদের অর্জনের ওপরেই দাঁড়িয়ে আছে বিশ্ববিদ্যালয় আইনে জুবায়ের হত্যাকাণ্ডের দণ্ডাদেশ। দুই বছর বাদে আজ প্রমাণিত_ বড় দুই দলের শিক্ষকরা সেদিন ভিসিবিরোধী আন্দোলন করেছিলেন ভাগবাটোয়ারার হিসাব মেলাতে; অনিবার্যতার জন্য নয়। নতুন ভাগবাটোয়ারার হিসাব মেলাতে বর্তমান ভিসিবিরোধী আন্দোলনেও তাই সেই পুরাতন শত্রুর সঙ্গেই 'তৎকালীন চেতনাবাজ'দের মৈত্রী! সেদিনের মিত্রদের আজ তারা ভুলে গেছেন!

শেষ দেখতে চান বলেই বর্তমান-প্রাক্তন শিক্ষার্থীরা লড়াইটা জারি রেখেছেন। তারা রাষ্ট্রীয় আইনে দ্রুততম সময়ে জুবায়ের হত্যার বিচার চান। ন্যায়বিচার চান। আমরা জানতে চাই, কবে আসবে সেই দিন? বিচার কতদূর মহামান্য আদালত?



স সৌমিত জয়দ্বীপ :সাংবাদিক

sc.joydip@gmail.com


মন্তব্য
সর্বশেষ ১০ সংবাদসর্বাধিক পঠিত
সম্পাদক : গোলাম সারওয়ার
প্রকাশক : এ কে আজাদ
ফোন : ৮৮৭০১৭৯-৮৫  ৮৮৭০১৯৫
ফ্যাক্স : ৮৮৭০১৯১  ৮৮৭৭০১৯৬
বিজ্ঞাপন : ৮৮৭০১৯০
১৩৬ তেজগাঁও শিল্প এলাকা, ঢাকা - ১২০৮
এই ওয়েবসাইটের লেখা ও ছবি অনুমতি ছাড়া অন্য কোথাও প্রকাশ বেআইনি
powered by :
Copyright © 2017. All rights reserved